ঢাকা ০৩:০৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম :
শহরে দারিদ্র্য বেড়েছে, কমেছে গ্রামে: সানেমের গবেষণা ৭ সদস্যের কমিটি গঠন মাদরাসা শিক্ষকদের বদলি নীতিমালায় আসন্ন জাতীয় নির্বাচন ঘিরে পাবনা-৩ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল হামিদ মাস্টারের ব্যাপক গণসংযোগ নেতা–কর্মীদের কারাগারে রেখে তামাশার নির্বাচন করা হচ্ছে: এবি পার্টি ১৭ দিন পর সুড়ঙ্গে আটকে পড়া ৪১ শ্রমিক জীবিত উদ্ধার অনুমতি ছাড়াই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের গাছ বিক্রির মহোৎসব পাবনার গয়েশপুরে প্রিন্সকে আ: লীগ দলের মনোনয়ন দেয়ায় গয়েশপুরে আনন্দ মিছিল ও মিষ্টি বিতরণ প্রান্তিক পর্যায়ের স্বাস্থ্যসেবাকে গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী চাটমোহরে জাতীয় যুব দিবস পালিত প্রাথমিক শেষ না হতেই শিশু শ্রমিক!

অনুমতি ছাড়াই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের গাছ বিক্রির মহোৎসব পাবনার গয়েশপুরে

বিশেষ প্রতিবেদক:
  • আপডেট সময় : ০৪:৩৩:০৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ নভেম্বর ২০২৩ ৮১ বার পড়া হয়েছে

নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে পাবনা সদর উপজেলার গয়েশপুর পূর্বপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চলছে গাছ কাটার মহোৎসব। সরকারের কোন দপ্তরের অনুমতি ছাড়াই বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির কয়েকজন অসাধু ব্যক্তির নেতৃত্বে চলছে এই ধ্বংসযজ্ঞ। বিদ্যালয়ের চেয়ার-টেবিল বানানোর নামে কোনরকম টেন্ডার ছাড়াই কেটে ফেলা হয়েছে লক্ষাধিক টাকার ৪ টি মোটাতাজা মেহগনি গাছ৷ সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপন আনুযায়ী স্কুলের গাছ কাটতে হলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও বন বিভাগের কাছে লিখিত আবেদন করতে হয়। সংশ্লিষ্ট বিভাগ অনুমোদন দিলেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গাছ কাটা যাবে।

কিন্তু এই ধরনের প্রক্রিয়া ছাড়াই গাছ কেটে বিক্রি করেছেন বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক রেহানা পারভীন ও ম্যানেজিং কমিটির নেতৃবৃন্দ। এতে এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হলেও ভয়ে মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছেনা তারা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যাক্তিরা জানান, আমরা বেশ কয়েকদিন ধরে দেখছি স্কুলের গাছ কাটা হচ্ছে। বড় বড় গাছ কেটে ফেলা হচ্ছে কি কারনে সেটাই বুঝতে পারছি না। গাছ আমাদের অক্সিজেন দেয়, গাছ কেটে ফেললে পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হয়ে যাবে। তবে গাছ কাটতে বাধা দিলে ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা হয়তো আমাদের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে আমাদের ক্ষতি করে দিতে পারে। এ কারণে আমরা কেউ বাধা দিচ্ছি না।

তবে গাছ কাটা বন্ধে সরকার যদি ব্যবস্থা নিতো তাহলে সকলের উপকার হবে। এ বিষয়ে বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক রেহানা পারভীন বলেন, আমরা মোট চারটি গাছ কেটেছি। বিদ্যালয়ের চেয়ার-টেবিল বানাতে হবে এ কারণে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের সাথে কথাবার্তা বলেই গাছ কাটার সিদ্ধান্ত দেওয়া হয়েছে। কারণ বিদ্যালয়ের যদি চেয়ার টেবিল প্রয়োজন হয় তাহলে গাছ কাটা দোষের কিছু নয়। তবে এ বিষয়ে ম্যানেজিং কমিটির কোনো সদস্যের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে পাবনা সদর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ঈসরাইল হোসেন বলেন, গয়েশপুর পূর্বপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গাছ কাটা হচ্ছে এটা সাংবাদিকদের থেকে শুনলাম। অনুমতি ছাড়া গাছ কাটার প্রমান পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

অনুমতি ছাড়াই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের গাছ বিক্রির মহোৎসব পাবনার গয়েশপুরে

আপডেট সময় : ০৪:৩৩:০৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ নভেম্বর ২০২৩

নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে পাবনা সদর উপজেলার গয়েশপুর পূর্বপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চলছে গাছ কাটার মহোৎসব। সরকারের কোন দপ্তরের অনুমতি ছাড়াই বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির কয়েকজন অসাধু ব্যক্তির নেতৃত্বে চলছে এই ধ্বংসযজ্ঞ। বিদ্যালয়ের চেয়ার-টেবিল বানানোর নামে কোনরকম টেন্ডার ছাড়াই কেটে ফেলা হয়েছে লক্ষাধিক টাকার ৪ টি মোটাতাজা মেহগনি গাছ৷ সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপন আনুযায়ী স্কুলের গাছ কাটতে হলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও বন বিভাগের কাছে লিখিত আবেদন করতে হয়। সংশ্লিষ্ট বিভাগ অনুমোদন দিলেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গাছ কাটা যাবে।

কিন্তু এই ধরনের প্রক্রিয়া ছাড়াই গাছ কেটে বিক্রি করেছেন বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক রেহানা পারভীন ও ম্যানেজিং কমিটির নেতৃবৃন্দ। এতে এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হলেও ভয়ে মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছেনা তারা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যাক্তিরা জানান, আমরা বেশ কয়েকদিন ধরে দেখছি স্কুলের গাছ কাটা হচ্ছে। বড় বড় গাছ কেটে ফেলা হচ্ছে কি কারনে সেটাই বুঝতে পারছি না। গাছ আমাদের অক্সিজেন দেয়, গাছ কেটে ফেললে পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হয়ে যাবে। তবে গাছ কাটতে বাধা দিলে ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা হয়তো আমাদের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে আমাদের ক্ষতি করে দিতে পারে। এ কারণে আমরা কেউ বাধা দিচ্ছি না।

তবে গাছ কাটা বন্ধে সরকার যদি ব্যবস্থা নিতো তাহলে সকলের উপকার হবে। এ বিষয়ে বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক রেহানা পারভীন বলেন, আমরা মোট চারটি গাছ কেটেছি। বিদ্যালয়ের চেয়ার-টেবিল বানাতে হবে এ কারণে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের সাথে কথাবার্তা বলেই গাছ কাটার সিদ্ধান্ত দেওয়া হয়েছে। কারণ বিদ্যালয়ের যদি চেয়ার টেবিল প্রয়োজন হয় তাহলে গাছ কাটা দোষের কিছু নয়। তবে এ বিষয়ে ম্যানেজিং কমিটির কোনো সদস্যের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে পাবনা সদর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ঈসরাইল হোসেন বলেন, গয়েশপুর পূর্বপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গাছ কাটা হচ্ছে এটা সাংবাদিকদের থেকে শুনলাম। অনুমতি ছাড়া গাছ কাটার প্রমান পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে